Wed. Jan 22nd, 2020

দৈনিক শিক্ষা খবর

নেত্রকোনা-১ আসনে মানু মজুমদার প্রার্থী হওয়ার খবরে অসন্তোষের ঝড় বিক্ষোভ মিছিল ভোটারদের,জনমনে চরম ক্ষোভ ও হতাশা

ষ্টাফ রির্পোটার: নেত্রকোনা-১ আসনে মানু মজুমদার প্রার্থী হওয়ার খবর পাওয়ায় চরম ক্ষোভ ও হতাশ বিরাজ করছে এ আসনের ভোটারদের। প্রার্থীর নামটি বিভিন্ন সোস্যাল মিডিয়া আসা মাত্রই এ আসনের ভোটারদের মাঝে তৈরী হয়েছে মিশ্র প্রতিক্রিয়া ও চাপা ক্ষোভ। চা স্টল থেকে শুরু করে পাড়া-মহল্লা,হাট-বাজারে কথা একটাই কে এই মানু মজুমদার ও তাঁর বাড়ী কোথায় এমন প্রশ্ন হাজারো ভোটারদের মাঝে। প্রার্থীর খবরে দুর্গাপুর উপজেলার শহীদ পরিবারের সন্তান চাঁন মিয়া মেম্বার এক প্রতিক্রিয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন আমরা এমন একজন নৌকার প্রার্থী চেয়েছিলাম। যে কিনা আমাদের কষ্টের কথা গুলো বুঝবে। আমার মানু মজুমদারকে কে তাঁকে চিনি না,তিনি এমন কি দুর্গাপুর,কলমাকান্দা আসনের মানুষের জন্যে করেছেন,যে তাঁকেই ভোট দিতে হবে । আর নৌকার ভোট কেনই বা তাঁকে দিবে এ অঞ্চলের হাজার হাজার ভোটাররা। তিনি তো এই এলাকার সন্তান না। অপর প্রতিক্রিয়ায় প্রভাষক লিয়াকত আলী বলেন আমি মনে করি নেত্রকোনা-১ আসনে শাহ্ কুতুব উদ্দিন রুয়েল ছাড়া নৌকার টিকিট ধরে রাখা অনেক কঠিন হবে। আমি চাই মাননীয় নেত্রী শেখ হাসিনা যাতে এই এলাকার লক্ষ লক্ষ জালাল ভক্তদের আকুতি তিনি কান পেতে শুনেন। আমাদেরকে আপনি নিরাশ করবেন না এটা আমাদের বিশ^াস। দুর্গাপুর পৌরসদরের ২নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আবু সিদ্দিক ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন নৌকার যে প্রার্থীর খবর শোনা যাচ্ছে তাতে আমরা হতাশ। এ আসনের সাধারণ ভোটাররা আমরা হতাশা মুক্ত হতে চাই। অচিরেই যেন নেত্রী মানু মজুমদারকে এ আসনে প্রার্থীতা বাতিল করেন। প্রবীণ আওয়ামীলীগ নেতা আনোয়ার হোসেন বুলবুল বলেন আমি জালাল উদ্দিন তালুকদারের সহযোদ্ধা হিসেবে নৌকার খাঁটি মানুষ হিসেবে এ ঘোষণা অত্যন্ত কষ্টকর। আমি নৌকার প্রার্থীর পরিবর্তন চাচ্ছি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে।
কলমাকান্দা উপজেলার সিদলী গ্রামের স্বপন সিংহ ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন মানু মজুমদার দলীয় মনোনয়ন পাওয়ায় আমাদের আওয়ামীলীগ ভোটারদের মাঝে তৈরী হয়েছে এক কঠিন উন্মাদনা। তা খাঁটিয়ে উঠা অনেক কঠিন আমরা একটি বিক্ষোভ মিছিল করেছি,মানু মজুমদারের প্রার্থী প্রত্যাহার চেয়ে। আমার নৌকার জন্যে রুয়েল কে চাই। কলমাকান্দা উপজেলার সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন বলেন নেত্রকোনা -১ আসনে নৌকার আসন পেতে হলে রুয়েল তালুকদারের জুড়ী নেই। মানু মজুমদার টিকিট পেলে এখানে সিট ধরে রাখা যাবেনা বলেও মন্তব্য করেন। ওই উপজেলার কৃষক লীগ নেতা হাফেজ সিদ্দিকুর রহমান ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন আমি নৌকার মার্কার প্রতীক হিসেবে রুয়েলকে চাই। রুয়েল ছাড়া এ আসনের ভোটাররা নৌকায় ভোট দিতে যাবে না। এমনকি কেন্দ্রে যাওয়া বন্ধ করে দিবে মন্তব্য করেন তৃণমূল ভোটাররা।